করোনার প্রকোপ মোকাবিলায় দৈনন্দিন জীবনে শতভাগ সচেতনতা নিশ্চিত করুণ – অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস এমপি

মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস এমপি বলেছেন, বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রকোপ মোকাবিলায় দৈনন্দিন জীবনে শতভাগ সচেতনতা নিশ্চিত করতে হবে। সকলে নিয়মিত মাস্ক ব্যবহার করুন, স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলুন।

আজ মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ এবং সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য মাস্ক বিতরণকালে এ কথা বলেন তিনি। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পৌর কাউন্সিলর মকবুল হোসেন, জাকির হোসেন, ফরহাদ হোসেন আবির, জেলা পরিষদ সদস্য আরিফুর রহমান আরিফ, যুবলীগ নেতা জাহিদ হাসান, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের উপ-আইন বিষয়ক সম্পাদক আপন দাস প্রমুখ।

অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস বলেন, বৈশ্বিক বিভিন্ন দেশে ইতোমধ্যে বৈশি^ক মহামারি করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ওয়েভ শুরু হয়েছে এবং প্রতিনিয়ত সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা পুনরায় বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ বছরের মার্চ থেকে বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হয়। বৈশ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় বাংলাদেশেও করোনা সংক্রমণ দ্বিতীয় দফায় বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। আসুন সকলেই সচেতন হই। স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে আরও যত্ববান হই এবং অন্যকে তা মেনে চলতে উৎসাহিত করি। আমরা কেউই যেন কোনো প্রকার উদাসীনতা না দেখাই। জীবন রক্ষায় দৈনন্দিন জীবনে শতভাগ সচেতনতা নিশ্চিত করতে হবে। সকলে নিয়মিত মাস্ক ব্যবহার করুন, স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলুন।

তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। দুরবস্থাগ্রস্ত মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সহায়তা ও চিকিৎসা সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছে। পরিবারের মানুষ ও আত্মীয়স্বজনরা মুখ ফিরিয়ে নিলেও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী মানুষের লাশ কাঁধে তুলে নিয়েছে- দাফন কার্য সম্পন্ন করেছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এদেশের মানুষের পরম বন্ধু। মানুষের দুঃখ-কষ্টে সব সময় আওয়ামী লীগ পাশে দাঁড়িয়েছে। বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় বাংলাদেশের অগ্রগতি ধারক বাহক আওয়ামী লীগের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখুন। বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ একটি আধুনিক উন্নত সমৃদ্ধ রাষ্ট্র বিনির্মাণ করতে হবে।