গজারিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের ১৮শ কেজি চাউল আত্মসাৎ!

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঈদ উপহার ভিজিএফ এর চাল ১০ কেজি করে বিতরণ করার কথা থাকলেও বিতরণ করা হচ্ছে ৭ কেজি ১৫৫ গ্রাম করে। বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাইন) ভাবেরচর ইউনিয়ন পরিষদে হতদরিদ্র ৬০০ পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে এই চাউল। ৮নং ওয়ার্ড মেম্বার জাহাঙ্গীরের উপস্থিতিতেই এই চাউল আত্মসাৎ করা হচ্ছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভবেরচর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোকারম হোসেন, ৫নং ওয়ার্ড মেম্বার মামুন শিকদার, ১ নং ওয়ার্ড মেম্বার সিরাজুল ইসলাম, ৩ নং ওয়ার্ড মেম্বার মমিনুর রহমান চৌধুরী, ৬ নং ওয়ার্ড মেম্বার জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ। একটি গামলা দিয়ে চাল দেয়া হচ্ছে।

১০ কেজি করে দেওয়ার কথা থাকলেও প্রতিজন থেকে ২ কেজি ৮৪৫ গ্রাম চাল আত্মসাৎ করা হয়েছে। ১১৯৫ জন ভিজিএফ কার্ডধারী সদস্য রয়েছে। প্রত্যেককেই চাউল দেয়া হবে। তবে এ পর্যন্ত ৬০০ জনকে দেয়া হয়েছে। প্রত্যেক জন থেকে ২ কেজি ৮৪৫ গ্রাম চাল আত্মসাৎ করে থাকলে সর্বমোট ১৮শ কেজি চাউল আত্মসাৎ করা হয়েছে।

চাউল মেপে দেয়া হয়েছে একজন ভিজিএফ কার্ডধারীকে। সেই চাউল ওখানকার সোনালী স্টোরে গিয়ে দোকানের মালিক বিপ্লব শাহের মাধ্যমে ডিজিটাল মাপার যন্ত্র দিয়ে  মাপা হয় সেই চাউল। মেপে দেখা যায় প্রত্যেক জনকে ৭ কেজি ১৫৫ গ্রাম করে চাউল দেয়া হয়েছে।

ইউনিয়ন পরিষদ সচিব মোকাররম হোসেন এ বিষয়ে বলেন, এ রকম হওয়ার তো কথা না। সর্বোচ্চ ৯ কেজি সর্বনিম্ন সাড়ে ৮ কেজি করে চাউল দেয়ার কথা। কিন্তু তার চেয়েও কম দেয়া হচ্ছে এটা আমার জানা নেই। তিনি আরো জানান, এক মেম্বার ৪ বস্তা চাউল এখানে দিয়েছে আর ৮ বস্তা চাউল বাড়িতে নিয়ে গেছে।

ভবেরচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার সাঈদ লিটন জানান, আমাকে ফাঁসানের জন্য মেম্বাররা গেম খেলতাছে। এভাবে ভিজিএফের চাল কম দেওয়ার কোন যুক্তি নাই। তাকে বিপদে ফালানোর জন্যই এ ধরনের কার্যকলাপ করছে তারা। আমি সচিবকে বলেছি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াউল ইসলাম চৌধুরী জানান, আগামীকাল থেকে ডিজিটাল মাপার যন্ত্র দিয়েই ভিজিএফের চাউল দেয়া হবে। এখানে কম দেওয়ার কোন সুযোগ নাই।