গজারিয়ায় অবৈধ ডকইয়ার্ডে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শ্রমিকের মৃত্যু

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় অবৈধ ডকইয়ার্ডে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে তুহিন (২৮) নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) দুপুর ২টার সময় উপজেলা হোসেন্দী ইউনিয়নের বাজার হোসেন্দী গ্রামের মোঃ হাবিবুল্লাহ ছেলে মোঃ তুহিন কর্মরত অবস্থায় বিদ্যুৎ স্পষ্ট হয়ে মারা যায়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নিহতের বাবা হাবিবুল্লাহ।

নিহত তুহিন হোসেন্দী ইউনিয়নের নিবিড়চর (হোসেন্দী বাজার) এলাকার বাসিন্দা মো. হাবিবউল্লাহর ছেলে। তিনি ডকইয়ার্ডে শ্রমিকের কাজ করতেন।

স্থানীয় সুত্রে জানতে পারী নিহত তুহিন প্রায় ৫ বছর যাবৎ মোকলেসুর রহমান এর ডকইয়ার্ডের কাজ করে আসছিল। নিহত তুহিনের দুইটি কন্যা সন্তান তামান্না আক্তার (০৩) নিহা মুনি (৭) মাস এবং স্ত্রী নিলা বেগম (২৫) রয়েছে।

এলকাবাসী সুত্রে জানাগেছে, বৃহস্পতিবার সকালে তুহিন ডকইয়ার্ডে কাজ করতে গিয়ে অসাবধানতাবশত বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে পড়ে গুরুতর আহত হয়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নেয়ামত শুকরিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের বাবা মোঃ হাবিবুল্লাহর কাছে তার ছেলে নিহত হওয়ার ঘটনা জানতে চাইলে তিনি ডকইয়ার্ডের মালিক পক্ষের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। মালিক পক্ষ নিহতের পরিবারের ভরনপোষণের দায় ভার নিয়েছে বলেও জানান তিনি।

জানা যায়, গজারিয়ার হোসেন্দির এই ডকইয়ার্ডটি অবৈধ। অবৈধভাবে এই ডক ইয়ার্ডটি চালিয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। ডকইয়ার্ডটি যেহেতু অবৈধ সেহেতু কিভাবে তারা বিদ্যুতের লাইন পেলে সেটা বলতে পারে না পল্লী বিদ্যুৎ অফিস।

এ বিষয়ে পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম জহিরুল কবির জানান, ডকইয়ার্ডটি যেহেতু অবৈধ সেহেতু বিদ্যুতের লাইনটিও অবৈধ হবে। তবে নিহতের ঘটনাটি তিনি জানেন না। লোকপাঠিয়ে জানার পরে বিষয়টি তিনি জানাবেন।

এ বিষয়ে ডকইয়ার্ডের মালিক মোকলেসুর রহমান জানান, কিভাবে মারা গেছে তা আমার জানা নেই। ডকইয়ার্ডটি অনুমোদিত কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ডকইয়ার্ডটি অনুমোদিত। পরে কথা বলতেছি বলে তিনি বিষয়টির কোন সদুত্তর না দিয়ে কেটে দেন ফোন।

হোসেন্দি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মনিরুল হক মিঠুর সেলফোনে বার বার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেন নি।

এ বিষয়ে গজারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো: রইছ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, যেহেতু মৃত্যু ব্যক্তির আত্মীয় স্বজন কেউই মামলা করবে না সেহেতু পুলিশের পক্ষ থেকে অপমৃত্যু একটি মামলা হবে।