গজারিয়ায় অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে মাটি চুরি॥ একটি বাল্বহেডসহ ১৫জন আটক॥ ১২ জনের ১ মাসের সাজা

কোনভাবেই অবৈধভাবে জমির মাটি কাটা বন্ধ করা যাচ্ছিল না। এ বিষয়ে গজারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলামও কয়েক হাজার লোকজন নিয়ে মানব বন্ধনও করেছেন কিন্তু অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করা যায়নি। অবশেষে ষাড়াশি অভিযানে নামে গজারিয়া উপজেলা প্রশাসন। এই অভিযানে সোমবার ৪টি বলগেট থেকে ১৫জনকে আটক করে। পরবর্তীতে ১২ জনকে ১ মাসের সাজা প্রদান করেন গজারিয়া উপজেলা সহকারি ভূমি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এসএম ইমাম রাজী টুলু।

এক মাসের সাজাপ্রাপ্তরা হলো বলগেট এমবি সায়হান থেকে আটককৃত ৪ জন হলো মো: বিল্লাল (২১) পিতা মোস্তফা জেলা- বরগুনা, মো: আবুল (৪০) পিতা মো: শহিদ জেলা- লক্ষীপুর, মো: জাহিদ (২১) পিতা আলমগীর পটুয়াখালি। মা বাবার দোয়া থেকে আটককৃত ৪ জন হলো মো: রানা (২১) পিতা: মো: আলমগীর গ্রাম আলেকজেন্ডার, নোয়াখালী, মো: রাকিব হোসেন (২২) পিতা মো: সেলিম গ্রাম: চর আপজন, লক্ষীপুর, মো: সোহাগ (১৯) পিতা- মো: আলমগীর গ্রাম: সবুজ জেলা: নোয়াখালী, মো: মিজান (২০) পিতা- মো: মোস্তাফিজ গ্রাম: চরকলাকোকা, লক্ষীপুর। হামজা এন্ড তালহা থেকে আটক কৃত ৫ জন হলো তানভীর (২২) পিতা- মো: সেলিম গ্রাম- পাকুড়িয়া, জেলা পিরোজপুর, ইমরান (২৬) পিতা মৃত মোসলেম মোল্লা, গ্রাম: উত্তর পাকুড়িয়া, পিরোজপুর, মো: রুবেল (২৫) পিতা মো: মহিবুল্লাহ, ডুমুরিয়া, পিরোজপুর, মো: নুর উদ্দিন (২৫) পিতা মো: শাহ আলম, নোয়াখালী, মো: আরিফ (২৪) পিতা: মো: মোস্তফা কামাল গ্রাম: উত্তর পাকুড়িয়া, পিরোজপুর। মীম শাওন থেকে তিনজন অপ্রাপ্ত বয়স্ক চাঁন বাদশা (১৭) পিতা কালু বেপারী জেলা- কুমিল্লা, শাহাদাত বেপারী (১৪) পিতা রহিমে বপপারী জেলা কুমিল্লা , সাব্বির (১৭) অপ্রাপ্ত বয়স্ক পিতা আব্দুল খালেক জেলা বরগুনা এদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বৈধ লাইসেন্সধারী মুন্সীগঞ্জের আফছার উদ্দিন আফসু চেয়ারম্যান জানান, আমার লাইসেন্স দিয়ে মেঘনা উপজেলা চেয়ারম্যান অনেক বদনাম করেছেন। আমার ড্রেজার দিয়ে আর মাটি কাটতে দিব না। আমার সুনাম নষ্ট হচ্ছে বদনাম হচ্ছে। আমি আগামী কালই আমার ইজারা আত্মসমর্পণ করে ইজারা বন্ধ করে দিব।

এ বিষয় কুমিল্লা জেলার মেঘনা উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম রতন সিকদার জানান, মাটি কাটে ড্রেজার দিয়ে জব্দ করলে ড্রেজার জব্দ করবে বাল্বহেড ধরলো কেন?

গজারিয়া উপজেলার মেঘনা নদীর মুদারকান্দি এলাকা থেকে দীর্ঘদিন ধরে মেঘনা উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম রতন সিকদার মুন্সীগঞ্জের আফসার উদ্দিন আফসু চেয়ারম্যানের বৈধ লাইসেন্স দিয়ে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে কয়েকশ বিঘা জমির মাটি কেটে নিয়েছে। এ বিষয়ে গজারিয়া উপজেলার সাধারণ জনগণ শত বাঁধা দিয়েও তাদের অবৈধভাবে মাটি কাটা বন্ধ করতে পারেনি।

এ বিষয়ে সহকারি কমিশনার (ভূমি) এস এম ইমাম রাজী টুলু জানান, কোনভাবে মেঘনা নদীর মুদারকান্দি গ্রামের মাটি কাটা বন্ধ করা যাচ্ছে না। ভোর ৬টায় অভিযান চালিয়ে ৪টি ড্রেজার থেকে ১৫জনকে আটক করি। এদের মধ্যে ৩জন অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। বাকী ১২জনকে ১ মাসের সাজা দিয়ে কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে। অভিযান চালিয়ে আসার পরে দুপুরে আবারো তারা মাটি কাটা শুরু করে। গভীর রাতে এই অবৈধ সিন্ডিকেটটি জমির মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে। দ্রুত আবারও অভিযান চালানো হবে।