টিকে থাকার লড়াইয়ে শ্রীলংকার মুখোমুখি আজ বাংলাদেশ

টিকে থাকার লড়াইয়ে শ্রীলংকার মুখোমুখি আজ বাংলাদেশ

এশিয়াকাপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শ্রীলংকার বিপক্ষে রোববার মাঠে নামছে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে বড় ব্যবধানে হারলেও পরের ম্যাচে আমিরাতকে হারিয়ে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। তবে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আমিরাতকে হারিয়ে আত্মবিশ্বাসী শ্রীলঙ্কাও। এ ম্যাচে হারলে টুর্নামেন্ট থেকে বিদাই অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যাবে টাইগারদের। তাই লড়াইটা বাংলাদেশের জন্য টিকে থাকারও। আর শ্রীলংকার জন্য জয়ের ধারা অব্যাহত রাখার ম্যাচ। মিরপুর শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় গুরুত্বপূর্ণ এ ম্যাচে মাঠে নামছে দুই দল।

মাঠের লড়াইয়ে নামার আগে বাংলাদেশের বড় দুশ্চিন্তা ব্যাটিং। প্রথম ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে মাত্র ১২১ রান সংগ্রহ করতে পারে তারা। দ্বিতীয় ম্যাচে অপেক্ষাকৃত দুর্বল আরব আমিরাতের বিপক্ষেও ১৩৩ রান সংগ্রহ করতে পারে তারা। দলের সেরা দুই তারকা বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ও উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম রয়েছেন অফফর্মে। তবে একই দুশ্চিন্তা রয়েছে লঙ্কান শিবিরেও। দারুণ শুরুর পর আমিরাতের বিপক্ষে ১২৯ রানের সংগ্রহ পেয়েছিল তারা।

মাঠে নামার আগে পরিসংখ্যানে শ্রীলংকার চেয়ে অনেক পিছিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। এশিয়াকাপে শ্রীলংকার বিপক্ষে বাংলাদেশের রেকর্ড খুবই খারাপ। এর আগে ১২বার দল দুটি মুখোমুখি হলেও ১১ বারই জিতেছে শ্রীলংকা আর একবার বাংলাদেশ। এবার এশিয়া কাপ হচ্ছে টি-টোয়েন্টি সংস্করণে। ক্রিকেটের এই সংক্ষিপ্ত সংস্করণে বাংলাদেশের পরিণতি আরো করুণ। চারটি ম্যাচের চারটিতেই সহজ জয় পেয়েছে লঙ্কানরা।

তবে পরিসংখ্যান যাই বলুক সাঙ্গাকারা, জয়াবর্ধানের অবসরের পর শ্রীলংকার ব্যাটিংয়ের সেই তেজ আর নেই। তাই লঙ্কানদের বিপক্ষে জয়ের টার্গেট নিয়েই মাঠে নামবে স্বাগতিক বাংলাদেশ। কারণ হারলেই এক রকম নিশ্চিত হয়ে যাবে বিদায়। জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ দলের হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান সাব্বির বলেন, ‘যে ভালো খেলবে সেই জিতবে। টি-টোয়েন্টি ম্যাচে পার্থক্য ১৯-২০। ব্যাটিং-বোলিং দুই বিভাগে যে ভালো সামর্থ্য দিয়ে খেলবে তারাই ম্যাচ জিতবে। টি-টোয়েন্টিতে ছোট-বড় দল বলতে কিছু নেই। আমরা শুধু শ্রীলংকা না যে কোনো দলের বিপক্ষে সেরা খেলাটা খেলার চেষ্টা করব। যদি আমরা সেরাটা দিতে পারি তাহলে আমরা ভালো কিছু করতে পারব।’

অপরদিকে বাংলাদেশকে শক্ত প্রতিপক্ষ মানছে শ্রীলঙ্কাও। বিশেষ করে পেস বোলিং লাইনআপ গত মৌসুম থেকেই দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করে আসছে। নতুন পেস সেনসেশন মুস্তাফিজুরকে বিশেষ দৃষ্টিতেই দেখছে তারা। তবে নিজেদের ব্যাটিংয়ের উপর আস্থা রাখছেন মালিঙ্গা। এ নিয়ে বলেন, ‘বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্যও মুস্তাফিজ দারুণ এক সম্পদ। সে সত্যিই খুব ভালো খেলছে। বাংলাদেশের বোলিং বিভাগ বেশ ভালো। আমরা সবাই তা জানি। বাংলাদেশের পেস আক্রমণ ঠেকানোর জন্য কী করতে হবে, তা আমাদের জানা আছে। বোলার কে, তা নিয়ে আমরা ভাবছি না; বরং একটা একটা বল খেলার চিন্তা করছি।’

আজ (শনিবার) আনুষ্ঠানিক কোন আনুশিলন না থাকলেও ঐচ্ছিক অনুশিলন করেছে দুই দলই। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ আর ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কা নিজেদের ঝালিয়ে নেয়। দলের জয়ের ব্যাপারে তাই আত্ববিশ্বাসী দুই দলই। উভয়ের মূল অস্ত্র বোলিং। বিশেষ করে বড় ভুমিকা রাখতে পারেন পেসাররা। একপ্রান্তে বাংলাদেশের মুস্তাফিজুর অপর প্রান্তে শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক মালিঙ্গা। তাই মিরপুরে রোববার জমজমাট আরও একটি লড়াই দেখতে যাচ্ছেন ক্রিকেটভক্তরা।